দিন শুরু করুন খেজুর দিয়ে

দিন শুরু করুন খেজুর দিয়ে

By In undefined On 4/7/2020

আমাদের প্রিয় নবী মুহাম্মাদ (সাঃ) ছিলেন একজন আদর্শ ব্যক্তি।উনার 
প্রতিটা কথা, প্রতিটা কাজ ছিলো সঠিক ও যুক্তিযুক্ত। আপনি কি জানেন 
রাসূলুল্লাহ (সাঃ)ফজরের সময় তিনটি খেজুর ও এক গ্লাস পানি খেয়ে কাজে নেমে 
পড়তেন? মাত্র ৩টা খেজুর!! অবাক হচ্ছেন?? আসুন জেনে নেই প্রতিদিন এই অল্প 
কয়টি খেজুর আমাদের জন্য কতটা উপকারী।

 

১.প্রোটিন সমৃদ্ধঃ খেজুর হচ্ছে প্রোটিনের একটি বড় উৎস যা আপনার 
স্বস্থ্যকে শুধু ফিট থাকতেই সাহায্য করেনা, আপনার পেশীকেও শক্তিশালী করে 
তোলে। এজন্য অনেক ডায়েটিশিয়ান রোজ ডায়েটে কয়েকটি খেজুর রাখতে পরামর্শ দেন।

 

২. ভিটামিন সমৃদ্ধঃ খেজুরে রয়েছে ভিটামিন এবং মিনারেল। এছাড়াও হয়েছে 
ভিটামিন বি সিক্স এবং ভিটামিন এ।প্রতিদিনকয়েকটি করে খেজুর খেলে আলাদা করে 
ভিটামিন সাপ্লিমেণ্টের প্রয়োজন হয়না। শুধু তাই ন, খেজুর খেলে পাওয়া যায় কাজ
 করার শক্তি ও প্রাণবন্ত ভাব।কারণ এতে রয়েছে প্রাকৃতি চিনি গ্লুকোজ, 
সুক্রোজ ও ফ্রুক্টোজ।

 

৩. হাড় মজবুত করেঃ সেলেনিয়াম, ম্যাংগানিজ, কপার, ম্যাগনেশিয়াম অর্থাৎ 
যেসব হাড়কে মজবুত করার জন্য প্রয়োজন তার সবই রয়েছে খেজুরে।সুরাং রোজ খেজুর 
খেলে হাড় মজবুত হবে,পাশাপাশি অস্টিওপরোসিস রোধে সহায়তা করবে।

 

৪.কোলেস্টেরল নাই এবং ফ্যাট কমঃ ফলে আপনার শরীরের চাহিদাও পূরণ হবে আবার
 ওজনও বৃদ্ধি পাবেনা। যারা মিষ্টি জাতীয় খাবার খেতে পছন্দ করেন তাদের জন্য 
এটা অবশ্যই সুখবর।

 

৫. নার্ভাস সিস্টেমকে শক্তিশালী করেঃ খেজুরে প্রচুর প্রিমানে পটাশিয়াম 
রয়েছে এবং স্বল্প পরিমাণে রয়েছে সোডিয়াম যা নার্ভাস সিস্টেমকে শক্তিশালী 
করার জন্য খুবই উপকারী। এছাড়াও পটাশিয়াম কোলেস্টেরল লেভেলকে কমিয়ে দেয় ফলে 
স্ট্রোক করার সম্ভাবনা কম থাকে।

 

৬. আইরন সমৃদ্ধঃ যাদের আইরনস্বল্পতা রয়েছে তাদের জন্য খেজুর খুবই 
উপকারী। আয়রন স্বল্পতার কারণে দুর্বলতা, মাথা ঘুরানো, নিশ্বাস ছোট হয়ে 
যাওয়া, বুকে ব্যথা হতে পারে।খেজুর এক্ষেত্রে বেশ কাজে দেয়।এছাড়াও খেজুর 
রুক্ত পরিশোধনে ভূমিকা রাখে।

 

৭. হজম শক্তিকে বৃদ্ধি করেঃ খেজুর পানিতে কিছুক্ষণ ভিজিয়ে রেখে খেলে হজম
 ক্ষমতা বাড়ে।যাদের কনস্টিপেশন আছে তাদেরকে ট্রিটমেন্ট হিসেবে খেজুর খেতে 
বলা হয়। এক্ষেত্রে তাজা খেজুর খুব কাজে দেয়।

 

৮. ত্বকের সৌন্দর্য্ বৃদ্ধি করেঃ ভিটামিন সি ও ডি ত্বকের 
স্থিতিস্থাপকতার উপর কাজ করে এবং ত্বককে মসৃণ করে। যাদের ত্বকে সমস্যা 
রয়েছে রোজ খেজুর খেলে ত্বকের সমস্যা দূরিকরণে তা সহায়তা করবে।এছাড়াও এতে 
রয়েছে এন্টি এজিং সুবিধা কারন খেজুর মেলানিনের পরিমাণ কমিয়ে দেয়।

 

৯. এন্টিএক্সিডেন সমৃদ্ধঃ ফ্ল্যাভনয়েড, ক্যারোটিনয়েড, ফেনলিক এসিড 
ইত্যাদি এন্টি অক্সিডেন্ট খেজুরে পাওয়া যায়।এসব এন্টিঅক্সিডেন্ট ফ্রি 
রেডিকেল ধংস করে।ফ্রি রেডিকেল হচ্ছে এর ধরনের যৌগ যা শরীরে বিক্রিয়া করে 
রোগ সৃষ্টি করতে পারে।

 

১০, মস্তিষকে সুস্থ রাখেঃ পরিক্ষাগারে গবেষণায় দেখে গেছে গেছে খেজুর 
ইনফ্লামেটরি মার্কার, ইন্টারলিউকিন-৬ এর পরিমাণ কমাতে সহায়তা করে। ব্রেইনে 
ইন্টারলিউকিন ৬ এর আধিক্য এলজেইমার’স ডিজিস সৃষ্টি করে যা মানুষের 
সৃতিশক্তি দুর্বল করে দেয়। সুতরাং আসেন আমরা নতুন করে এই হারানো সুন্নাহ কে
 শুরু করি। এতো উপকার যখন মাত্র ৩টি খেজুর খেয়েই পাবেন তাহলে আর অপেক্ষা 
কিসের?

 

নায়লাহ আমাতুল্লাহ

ফিচার রাইটার, মডেস্টবিডি




Continue Shopping Order Now